ফরাসি বিপ্লবে দার্শনিকদের ভূমিকা।

 ভুমিকা::

অষ্টাদশ শতক ছিল বিভাষিত দর্শনের যুগ। এই শতকে ফ্রান্সে এমন একদল সাহিত্যিক-দার্শনিক-এতিহাসিকের আবির্ভাব ঘটে,যারা ফ্রান্সের সমকালীন আর্থ-সামাজিক ব্যবস্থার অসাম্য,দুর্নীতি ও অনাচারের কথা তুলে ধরেন এবং জাতীয় জীবনে এক বৈপ্লবিক আলোরণের সৃষ্টি করেন। এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন ম্যাসলিয়ার, লা- মেত্রি, কাঁদিলাক এবং বিখ্যাত ত্রয়ী মন্তেস্কু, ভলতেয়ার ও রুশো । 


মন্তেস্কু(1689-1755)-: 

বিখ্যাত ফরাসী দার্শনিক মন্তেস্কু 1748 খ্রিস্টাব্দ তার লেখা স্পিরিট 'অব্ লজ' গ্রন্থে ফ্রান্সের রাজার ঐশ্বরিক অধিকার তত্ত্বের তীব্র সমালোচনা করেন এবং ব্যক্তি স্বাধীনতার সংরক্ষণের জন্য রাষ্ট্রের শাসন, আইন ও বিচার বিভাগের পৃথকিকরণের দাবি জানান। তিনি ধনবন্টন এবং সর্বসাধারণের ভোটাধিকারের কথা বলেন। তার অপর গ্রন্থ' The Persian Letters'-এ তিনি ফ্রান্সের প্রচলিত সমাজ কাঠামোর দোষ ত্রুটির প্রতি বিদ্রুপ করে জনগনকে বিদ্রোহের পথে ঠেলে দিয়েছিলেন।


ভলতেয়ার(1694-1778):: 

ঐতিহাসিক, নাট্যকার কবি, প্রাবন্ধিক ও দার্শনিক ভলতেয়ার রচিত 'কাঁদিদ' ও 'লেতর ফিলজফিক' গ্রন্থে ফরাসী স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে নিন্দায় মুখর হন। তিনি ক্যাথলিক চার্চকে প্রগতি ও শিল্পের বিরোধী বলেছেন। 


রুশো(1712-1778)::

 'ঝড়ের পাখি' বা' ফরাসী বিপ্লবের জনক' নামে পরিচিত জেঁন জেঁকুইস রুশো তার 'অসাম্যের সূত্রপাত '( origin of Inequality)গ্রন্থে তিনি বলেছেন " মানুষ স্বাধীন সত্তা নিয়ে জন্মায় , সর্বত্রই সে শৃঙ্খলায় আবদ্ধ ।" তার অপর গ্রন্থ'The Social contract' -এ জানান যে,জনগণই হল সকল ক্ষমতা ও শক্তির উৎস। ঈশ্বর নয় জনগণের ইচ্ছা অনুসারে 'সামাজিক চুক্তি'-র মাধ্যমেই রাজা সিংহাসনে বসেছেন। সুতারাং তিনি স্বৈরাচারীহলে জনগণ তাকে পদচ্যুত করতে পারবে।


ডেনিস দিদেরো::(1751-1772)::

 ফরাসী সাহিত্যের অন্যতম স্রষ্টা ডেনিস দিদেরো ফ্রান্সের প্রচলিত রাষ্ট্র, সমাজ ও প্রশাসনের ত্রুটি- বিচ্যুত তুলে ধরতে গিয়ে 35 খন্ডে 25 বছর ধরে রচনা করেন 'বিশ্বকাশ' গ্রন্থ। 


ফিজিওক্রাট প্রন্থা::

 ফ্রাঙ্কোয়াস কুয়েসনে ও টুর্গোর নেতৃত্বে ফ্রান্সে ফিজিক্যাট নামের একদল অর্থনীতিবিদের আবির্ভাব হয় , যারা মার্কেনটাইলবাদের বিরোধিতা করেন এবং অ্যাডাম স্মিথের উদার অর্থনীতিবাদ (লেসাফেয়ার) -কে সমর্থন করেন।


উপসংহার::

 ফরাসী বিপ্লব সংঘটিত হওয়ার নেপথ্যে দার্শনিকদের ভুমিকা নিয়ে পণ্ডিত মহলে যথেষ্ট মতভেদ রয়েছে- ঐতিহাসিক মুনিয়ের এর মতে ,- সাধারণ মানুষ ভলতেয়ার ওরুশোর লেখা পড়তেন না বা জানতেন না । অপর দিকে ঐতিহাসিক উইলার্ট(willart) -এর মতে ,- দীর্ঘদিনের বঞ্চনার ফলে মানুষের আশা আকাঙ্খা অনুচ্চারিত , অব্যক্ত হয়ে মনের মধ্যেই গুমরে মরছিল। দার্শনিকরা স্বাধীন চিন্তার পথে বাধাগুলি সরিয়ে দিয়ে অস্পষ্ট ধারণাগুলিকে ভাষা দিয়েছিলেন।

Previous Post