হরপ্পা সভ্যতার ধ্বংসের পিছনে পরিবেশগত কারণ কতখানি দায়ী ছিল ?

 হরপ্পা সভ্যতার পতনে পরিবেশগত কারণ

হরপ্পা সভ্যতার পতনে পরিবেশগত কারণ
#হরপ্পা_সভ্যতা #প্রাকৃতিক_কারণ #নদী_প্রবাহ #জলবায়ু_পরিবর্তন

হরপ্পা সভ্যতার অবসান কীভাবে ঘটল তা একটি বিতর্কিত বিষয়, এই সভ্যতার চূড়ান্ত অবসানে কিছুটা আকস্মিকতা ছিল তাতে সন্দেহের অবকাশ নেই। এই সম্পর্কে পুরাতত্ত্ববিন, ভূবিদ, আবহাওয়াবিদ ও ঐতিহাসিকরা নিজ নিজ মত ব্যক্ত করেছেন। হরপ্পা সভ্যতার পতনের জন্য একটি নির্দিষ্ট পরিমাণে বিভিন্ন পরিবেশগত কারণকে দায়ী করা যেতে পারে। এখানে কিছু মূল বিষয় দেওয়া হয়েছে:

 সিন্ধু নদীর গতিপথ পরিবর্তন হরপ্পার পতনের কারন

ভূতাত্ত্বিক প্রমাণ ইঙ্গিত করে যে সিন্ধু নদীর গতিপথ, বারবার পরিবর্তিত হয়েছিল। এই নদীকেই কেন্দ্র করে হরপ্পা সভ্যতা অনেক বেশি ফুলেফেঁপে উঠেছিল। সময়ের সাথে সাথে পরিবর্তিত ঘটতে থাকে। এই পরিবর্তনগুলি অত্যাধুনিক সেচ এবং কৃষি ব্যবস্থাকে ব্যাহত করে ছিল। যার ফলে ফসলের ফলন কমে যায় এবং পরবর্তীতে অর্থনৈতিক সংকট দেখা দেয়।

 হরপ্পার পতনে জলবায়ু পরিবর্তন এবং খরা

কোনো কোনো ঐতিহাসিকের মতে, ভূ-প্রকৃতির ও আবহাওয়ার স্বাভাবিক পরিবর্তন ছিল হরপ্পা-সভ্যতার বিলুপ্তির প্রধান কারণ। সিন্ধু অঞ্চলে প্রাপ্ত সিল ও মূর্তি থেকে বোঝা যায় ঐ অঞ্চলে মহিষ, গন্ডার, হাতি, বাঘ ইত্যাদি জন্তু বাস করত। এই জন্তুগুলি সাধারণত বৃষ্টিবহুল অঞ্চলেই বসবাস করত। সুতরাং, সিন্ধু উপত্যকার সময়ে যথেষ্ট বৃষ্টিপাত হত। কিন্তু ক্রমশ এখানকার আবহাওয়া পরিবর্তিত হতে থাকে। নিকটবর্তী অঞ্চলে মরুভূমি থাকায় ক্রমশ এই অঞ্চল শুকনো হয়ে যাওয়ার প্রবণতা দেখা যায়।

 মাটির লবণাক্তকরণ বৃদ্ধি

মরুর প্রভাবেই সিন্ধু অঞ্চলের ভূস্তরের নীচের জল ক্রমশ লোনা হতে থাকে। ফলে ভূমির উর্বরতা কমে যায়। এইভাবে জলাভাব মরুভূমি তৈরি করে ও মরুভূমি বৃষ্টিপাতকে কমিয়ে দেয়। ব্রাইসন ও সোয়ানের মতেও বৃষ্টিপাতের হ্রাসবৃদ্ধির উপর এই অঞ্চলের সভ্যতার বিকাশ বা পতন নির্ভরশীল ছিল। তাঁদের মতে, একদা এই অঞ্চলে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ অত্যন্ত বেশি ছিল। ফলে এখানে সেইসময়ে সভ্যতার বিকাশ ঘটেনি। মধ্যবর্তী সময়ে, স্বাভাবিক বৃষ্টিপাতযুক্ত অঞ্চল হিসাবে এখানে সভ্যতা বিকশিত হতে পেরেছিল, তারপর ক্রমশ বৃষ্টিপাত অত্যন্ত কমে যায় ও এই স্থান বসবাসের অযোগ্য হয়ে উঠে সভ্যতার পতন ঘটায়

হরপ্পা সভ্যতার পতনে ভূমিকম্পের প্রভাব

অনেকের মতে, প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকেই হরপ্পা-সংস্কৃতি ধ্বংস হয়েছিল। জলবিজ্ঞান বিষয়ে গবেষণা করে এরা বলেছেন যে, সিন্ধু-উপত্যকার নিকটবর্তী অঞ্চলেই ভূমিকম্পের উৎসস্থল ছিল, ভূমিকম্পেই এই সভ্যতা ধ্বংস হয়েছিল, তারা তাঁদের যুক্তির সপক্ষে মাহজোদাড়োতে প্রাপ্ত ইতস্তত বিক্ষিপ্ত মৃতদেহগুলির কথা বলেন, কঙ্কালগুলিতে যে ক্ষত চিহ্ন দেখা যায়, সেগুলিও ভুমিকম্পের কারণে, হয়তো ঘরবাড়ি ভেঙে পড়ার ফলে সৃষ্টি হয়েছিল বলে তাঁরা মনে করেন। একই কারণে মৃতদেহগুলি সৎকারও করা হয়নি।

কিন্তু এ বিষয়ে বলা যায় যে, এই ভূমিকম্প তত্ত্ব মহেঞ্জোদাড়োর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হলেও হরপ্পা সভ্যতার নগরগুলির ধ্বংসের ব্যাখ্যা এর থেকে মেলে না। এমনকি ভূমিকম্পের পরেও মহেঞ্জোদাড়ো নগরটি পুনরায় নির্মাণ করা হয়নি কেন—সে প্রশ্নও থেকে যায়।

হরপ্পা সভ্যতার পতনে বন্যার ভূমিকা

ভূমিকম্পের মতোই বন্যাকেও কেউ কেউ হরপ্পা-সভ্যতার পতনের জন্য দায়ী করেছেন। পলি জমে ক্রমশ নদীগর্ভ -ভরাট হয়ে গিয়েছিল। ফলে বর্ষায় বন্যা ছিল অবশ্যম্ভাবী যা শহরকে প্লাবিত করত। ঐতিহাসিক রাইকস্-এর মতে, “সিন্ধুনদের জল অবরুদ্ধ হওয়ার ফলে ক্রমাগত বন্যা ও প্লাবন ছিল এবং এর ফলেই সিন্ধু সভ্যতার বিলোপ ঘটেছিল।” এস. আর. সাহানীর মতেও প্লাবন বা বন্যাই সিন্ধু সভ্যতার বিলুপ্তি ঘটিয়েছিল। খননকার্যের ফলে অন্তত তিনবার বিধ্বংসী বন্যার প্রমাণ পাওয়া গেছে।

বন্যার প্রকোপ থেকে নিজেদের বাঁচাতে সিন্ধুবাসী ৪৩ ফুট চওড়া একটি বাঁধ নির্মাণ করেছিল। পয়ঃপ্রণালীর উচ্চতা করা হয়েছিল ১৪ ফুট, বাড়িগুলির ভিত উঁচু করা হয়েছিল, যাতে বন্যার জল বাড়িতে ঢুকতে না পারে।

প্রাকৃতিক সম্পদের ক্ষতি হরপ্পা সভ্যতা পতনের কারণ

পরিবেশগত পরিবর্তনের সঙ্গে মনুষ্যকৃত ঘটনাবলীর দায়ভাগও অস্বীকার করা কঠিন। নগরাশ্রয়ী হরপ্পা-সভ্যতার বাড়িঘর তৈরির জন্য বহু সংখ্যক ইট বানানো হত; এই ইটের এক বড় অংশ চুল্লীতে পোড়ানো পাকা ইট। চুল্লীতে পোড়ানোর জন্য অপরিহার্য জ্বালানী আসত কাঠ থেকে, যে কাঠ পাওয়ার জন্য ব্যাপকভাবে বৃক্ষচ্ছেদন ঘটে থাকা স্বাভাবিক। বৃক্ষসম্পদের নির্বিচার প্রয়োগ কি শেষ পর্যন্ত আরণ্যক সম্পদের হ্রাস বা হানি ঘটিয়েছিল? এমনটা ঘটে থাকলে পরিবেশের উপর প্রতিকূল প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। বৃষ্টিপাতের পরিমাণ হ্রাস পেয়ে হরপ্পা-সভ্যতার সমগ্র জীবনযাত্রা কালক্রমে সংকটাপন্ন হয়ে উঠে থাকতে পারে।

 হরপ্পার পতনে মহামারী এবং স্বাস্থ্য সমস্যা

পরিবেশগত কারণগুলি রোগের বিস্তারকে সহজতর করতে পারে। ব্ন্যার কারণে দীর্ঘদিন এলাকা গুলি জলে ডুবে থাকায় নানা রোগ জীবানুর বহনকারী পোকামাকড়কে উৎপাত বেড়েছিল। এছাড়া শহর গুলি জনবহুল হওয়ার কারনে স্বাস্থ্যকে অনেকটা প্রভাবিত করতে পারে বলেই মনে করা যায়। সম্ভাব্যভাবে কর্মশক্তি ও উৎপাদনশীলতা হ্রাসের দিকে পরিচালিত করেছিল রোগ মহামারির বৃদ্ধি।

হরপ্পার অধিবাসীদের অভিবাসন এবং পরিত্যাগ

খরা, বন্যা প্রভৃতি পরিবেশগত চাপ পড়ে কিছু বাসিন্দাকে অন্য অঞ্চলে স্থানান্তরিত করতে প্ররোচিত করেছিল বলে মনে হয়। যার ফলে নগর কেন্দ্রগুলি ধীরে ধীরে পরিত্যাগ করা হয় এবং সামগ্রিক সামাজিক কাঠামো দুর্বল হয়ে পড়ে। নতুন পরিবেশে নিজেদের বিপদ আরো নতুন করে বৃদ্ধি পায়।

বাণিজ্যে বিঘ্নের ফলে হরপ্পা সভ্যতার পতণ ঘটেছিল

মেসোপটেমীয় পুরাতত্ত্বের আলোকে অনুমান করা হয় আনুমানিক খ্রিস্টপূর্ব ১৯০০-র পরবর্তী সময়ে মেসোপটেমিয়ার সঙ্গে হরপ্পা-সভ্যতার বাণিজ্যে ভাঁটা দেখা দিয়েছিল। নগরাশ্রয়ী সভ্যতায় বাণিজ্যের তাৎপর্য অপরিসীম। হরপ্পা-সভ্যতার দূরপাল্লার বাণিজ্যে অধোগতি সম্ভবত সভ্যতাটির সমস্যা বাড়িয়ে তুলেছিল। যেভাবে হরপ্পা- সভ্যতার প্রধান নগরগুলি কার্যত পরিত্যক্ত হয়ে যায়, তাতে মনে হয় কারিগরি পেশা ও বাণিজ্য এই সভ্যতার অন্তিম পর্বে তাদের গুরুত্ব হারায়; ফলে কারিগরি উৎপাদন ও বিনিময়ের কেন্দ্র হিসেবে নগরগুলির উপযোগিতাও হ্রাস পায়।

 এটা লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে পরিবেশগত কারণগুলি একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করলেও, হরপ্পা সভ্যতার পতন সম্ভবত সামাজিক-রাজনৈতিক পরিবর্তন, বহিরাগত আক্রমণ এবং অভ্যন্তরীণ সংঘাত সহ একাধিক কারণের একটি জটিল প্রভাব ফেলে ছিল। মাটিমার হুইলার মহেঞ্জোদারোর অন্তিম পর্বের বিপর্যস্ত অবস্থার ছবি তুলে ধরেছিলেন। নগরটির পরিত্যক্ত হওয়ার প্রাক্কালে ইতস্তত বিক্ষিপ্ত বেশ কয়েকটি নরকঙ্কাল তিনি খুঁজে পান। মৃতদেহগুলির যথাযথ সৎকার হওয়া তো দূরস্থান, কঙ্কালে আঘাতের চিহ্ন ছিল। হুইলার সিদ্ধান্তে এসেছিলেন বহিরাক্রমণ তুলা কোনও সহিংস পরিস্থিতি মহেস্তোদারোর অস্তিত্বে যবনিকা টেনে দিয়েছিল। তিনি এই প্রসঙ্গে আরও মন্তব্য করেন যে ঋগ্বেদে বেশ কিছু পুর ধ্বংসের যে বিবরণ আছে, সেই পুরগুলি আসলে হরপ্পা-সভ্যতার নগর।

Related MCQ Question: হরপ্পা সভ্যতা পরিবেশগত কারণ

 1. প্রশ্ন: কোন ভূতাত্ত্বিক বৈশিষ্ট্য হরপ্পা সভ্যতাকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করেছে?

    ক) হিমালয় পর্বত

    খ) গোবি মরুভূমি

    গ) সিন্ধু নদী

    ঘ) আরব সাগর

    উত্তর: গ) সিন্ধু নদী


 2. প্রশ্ন: নদীর ধরণ পরিবর্তন হরপ্পা সভ্যতাকে কীভাবে প্রভাবিত করেছিল?

    ক) সৃষ্ট ভূমিকম্প

    খ) ব্যাহত বাণিজ্য পথ

    গ) কৃষি প্রবৃদ্ধি সহজতর করা

    ঘ) উন্নত নগর পরিকল্পনা

    উত্তর: খ) ব্যাহত বাণিজ্য পথ


 3. প্রশ্ন: কোন পরিবেশগত কারণে মাটিতে লবণ জমা হয়?

    ক) বন উজাড়

    খ) অতিরিক্ত সেচ

    গ) আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত

    ঘ) ভারী বৃষ্টিপাত

    উত্তর: খ) অতিরিক্ত সেচ


 4. প্রশ্ন: হরপ্পাবাসীরা কোন প্রাকৃতিক সম্পদের উপর ব্যাপকভাবে নির্ভর করত?

    ক) সোনা

    খ) কাঠ

    গ) মার্বেল

    ঘ) আইভরি

    উত্তরঃ খ) কাঠ


 5. প্রশ্ন: জলবায়ু ওঠানামা হরপ্পা সভ্যতাকে কীভাবে প্রভাবিত করেছিল?

    ক) দ্রুত নগরায়নের প্রচার

    খ) খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি

    গ) খরা সৃষ্টি করেছে

    ঘ) সাংস্কৃতিক বিনিময়কে উৎসাহিত করা

    উত্তর: গ) খরা সৃষ্টি করে


 6. প্রশ্ন: মহামারী হরপ্পাবাসীদের উপর কী প্রভাব ফেলেছিল?

    ক) জনসংখ্যা বৃদ্ধি বৃদ্ধি

    খ) উন্নত বাণিজ্য নেটওয়ার্ক

    গ) উন্নত কৃষি পদ্ধতি

    ঘ) কর্মশক্তি এবং উৎপাদনশীলতা হ্রাস

    উত্তর: ঘ) কর্মশক্তি এবং উৎপাদনশীলতা হ্রাস


 7. প্রশ্নঃ হরপ্পা সভ্যতার কিছু অধিবাসী কেন স্থানান্তরিত হয়েছিল?

    ক) নতুন বাণিজ্য অংশীদার খোঁজা৷

    খ) বাহ্যিক আক্রমণ এড়ানো

    গ) প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে রক্ষা পাওয়া

    ঘ) নতুন অঞ্চল অন্বেষণ করা

    উত্তর: গ) প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে রক্ষা পাওয়া


 8. প্রশ্ন: হরপ্পা সভ্যতার পতনে গোবি মরুভূমি কী ভূমিকা পালন করেছিল?

    ক) কৃষি উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি

    খ) একটি প্রতিরক্ষামূলক বাধা প্রদান করেছে

    গ) প্রভাবিত বাণিজ্য রুট

    d) একটি স্থির জল সরবরাহ প্রস্তাব

    উত্তর: গ) প্রভাবিত বাণিজ্য রুট


 9. প্রশ্ন: পরিবেশগত চাপ কীভাবে হরপ্পা অর্থনীতিকে প্রভাবিত করেছিল?

    ক) বাণিজ্য জোট শক্তিশালী করা

    খ) উত্‍পাদন শিল্পগুলি বৃদ্ধি করা হয়েছে৷

    গ) কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধির ফলে

    ঘ) অর্থনীতি ও বাণিজ্য নেটওয়ার্ক দুর্বল করে দিয়েছে

    উত্তর: ঘ) অর্থনীতি ও বাণিজ্য নেটওয়ার্ক দুর্বল করে


 10. প্রশ্ন: হরপ্পা সভ্যতায় নগর কেন্দ্রগুলিকে ধীরে ধীরে পরিত্যাগ করার জন্য কোন উপাদানটি অবদান রেখেছিল?

     ক) নিবিড় চাষ পদ্ধতি

     খ) অত্যধিক বৃষ্টিপাত

     গ) অতিরিক্ত জনসংখ্যা

     ঘ) পরিবেশগত চ্যালেঞ্জের কারণে অভিবাসন

     উত্তর: ঘ) পরিবেশগত চ্যালেঞ্জের কারণে অভিবাসন

Next Post Previous Post