মহাদেশীয় অবরোধ ব্যবস্থা নেপোলিয়নের পতনের জন্য কতটা দায়ী ছিল?

  নেপোলিয়নের পতনে মহাদেশীয় অবরোধের ভূমিকা মূল্যায়ন

নেপোলিয়নের পতনে মহাদেশীয় অবরোধের ভূমিকা মূল্যায়ন
#নেপোলিয়নের-পতন #মহাদেশীয়-অবরোধ

নেপোলিয়ান নীলনদ ও ট্রাফালগড়ের নৌ যুদ্ধে শোচনীয়ভাবে পরাজিত হয়ে উপলব্ধি করেন যে, ইংল্যান্ডের মত শক্তিশালী দেশকে নৌ যুদ্ধে পরাজিত করা অসম্ভব। তাকে একমাত্র বশীভূত করা যেতে পারে অর্থনৈতিক অবরোধের মাধ্যমে। এই কারণে তিনি ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে মহাদেশীয় অবরোধ জারি করেন। তাই সূচনা পর্বে ইংল্যান্ডকে প্রভূত ক্ষয়ক্ষতি সম্মুখীন হতে হয়। এমনকি "অর্ডার ইন কাউন্সিল" কার্যকর করতে গিয়ে ইংল্যান্ডকে ডেনমার্ক, আমেরিকার সাথে যুদ্ধে জড়িয়ে পড়তে হয়। তা সত্ত্বেও নেপোলিয়নের মহাদেশীয় অবরোধ দীর্ঘস্থায়ী হয়নি; শেষ পর্যন্ত এই ব্যবস্থা ব্যর্থ হয় এবং নেপোলিয়নের পতন ডেকে আনে।

  • প্রথমতঃ মহাদেশীয় অবরোধ ব্যবস্থা কার্যকর করার জন্য প্রয়োজনীয় শক্তিশালী নৌ বাহিনী নেপোলিয়ানের ছিল না। তাই ইংল্যান্ড তার শক্তিশালী নৌবাহিনী সাহায্যে "অর্ডার ইন কাউন্সিল" জারি করে নেপোলিয়নের বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযান চালায়।
  • দ্বিতীয়তঃ শিল্প বিপ্লবের ফলে ইংল্যান্ডের সস্তায় উৎপন্ন পণ্য বিদেশের বাজারে পৌঁছাতে না পারলে জিনিসপত্রের মূল্য বৃদ্ধি পায়। আর এরই প্রতিক্রিয়াতে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে নেপোলিয়ন বিরোধী আন্দোলন গড়ে ওঠে।
  • তৃতীয়তঃ পোপ মহাদেশীয় অবরোধ ব্যবস্থা মানতে মানতে রাজি না হলে নেপোলিয়ন পোপের রাজ্য দখল করেন। এরই প্রতিক্রিয়া স্বরূপ সমগ্র ক্যাথলিক জগতে নেপোলিয়নের বিরুদ্ধে ক্ষোভের সঞ্চার হয়।
  • চতুর্থতঃ মহাদেশীয় অবরোধ শিকারে অনিচ্ছুক পর্তুগালকে শিক্ষা দেয়ার জন্য নেপোলিয়ান পর্তুগাল অভিযান করেন এবং পর্তুগাল জয় করে ফেরার সময় স্পেন দখল করেন। ফলে স্পেন ও পর্তুগাল মিলিত হয়ে নেপোলিয়নের বিরুদ্ধে সংগ্রামে অবতীর্ণ হয়। বিভিন্ন ইউরোপীয় দেশ এই সংগ্রামে স্পেনকে ও পর্তুগালকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসে এবং "জাতি সমূহের যুদ্ধ" সৃষ্টি হয়। তাই আক্ষেপ করে নেপোলিয়ান বলেছিলেন, "Spanishulcer ruined me."
  • পঞ্চমতঃ ১৮১২ খ্রিস্টাব্দে মহাদেশীয় অবরোধ গ্রহণে অনিচ্ছুক রাশিয়া অভিযানের সময় তাঁর বিখ্যাত "গ্রান্ড আর্মি" ধ্বংস হয়। যা প্রমাণ করে নেপোলিয়ন অপরাজেয় নয়। ফলে ইউরোপের বিভিন্ন রাষ্ট্র তার স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে জোট বন্ধ হয়। যা পরবর্তীকালে তাঁর পতনকে পাওয়া সম্ভবই করে তোলে।

পরিশেষে বলা যায়, নেপোলিয়নের বিরুদ্ধে লাইভ জিগের যুদ্ধে তাঁর পরাজয়ের ইউরোপের নেপোলিয়নের বিশাল সাম্রাজ্যকে সম্পূর্ণ ধ্বংস করে। সুতরাং যে ঘটনা নেপোলিয়নের পতন কে ত্বরান্বিত করেছিল তা হলো মহাদেশীয় অবরোধ। তাই ঐতিহাসিক জর্জ লর্জ তাই মন্তব্য করেছেন, মহাদেশীয় অবরোধ ছিল একজন কূটনীতি হিসেবে নেপোলিয়নের ব্যর্থতার সর্বাপেক্ষা বড় প্রমাণ।

Related Short Question:

প্রশ্নঃ মহাদেশীয় অবরোধ কি ছিল?

 উত্তর: মহাদেশীয় অবরোধ ছিল ১৯ শতকের গোড়ার দিকে মহাদেশীয় ইউরোপ এবং গ্রেট ব্রিটেনের মধ্যে বাণিজ্য বন্ধ করার জন্য নেপোলিয়ন কর্তৃক বাস্তবায়িত একটি নীতি।

 প্রশ্ন: মহাদেশীয় অবরোধ কীভাবে নেপোলিয়নের সাম্রাজ্যকে প্রভাবিত করেছিল?

 উত্তর: অবরোধ নেপোলিয়নের সাম্রাজ্যের অর্থনীতিকে দুর্বল করে এবং পণ্যের ব্যাপক ঘাটতি ঘটিয়ে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করেছিল।

 প্রশ্ন: মহাদেশীয় অবরোধ কি নেপোলিয়নের পতনের দিকে পরিচালিত করেছিল?

 উত্তর: যদিও মহাদেশীয় অবরোধ নেপোলিয়নের অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক চ্যালেঞ্জে অবদান রেখেছিল, এটি তার পতনের একমাত্র কারণ ছিল না।

 প্রশ্ন: মহাদেশীয় অবরোধের কিছু পরিণতি কী ছিল?

 উত্তর: অবরোধের পরিণতির মধ্যে অর্থনৈতিক অসুবিধা, চোরাচালান বৃদ্ধি এবং কূটনৈতিক সম্পর্কের টানাপোড়েন অন্তর্ভুক্ত ছিল।

 প্রশ্নঃ মহাদেশীয় অবরোধ কিভাবে নেপোলিয়ন সম্পর্কে ইউরোপের ধারণাকে প্রভাবিত করেছিল?

 উত্তর: অবরোধ ইউরোপীয় দেশগুলির মধ্যে অসন্তোষের জন্ম দেয় এবং নেপোলিয়নের শাসনের বিরুদ্ধে বিরোধিতায় জ্বালাতন করে।

 প্রশ্ন: মহাদেশীয় অবরোধ কি তার অভিষ্ট লক্ষ্যে সফল হয়েছে?

 উত্তর: অবরোধটি ব্রিটেনের অর্থনীতিকে পঙ্গু করার প্রাথমিক উদ্দেশ্য সম্পূর্ণরূপে অর্জন করতে পারেনি, কারণ চোরাচালান এবং অন্যান্য ত্রুটি কিছু বাণিজ্য চালিয়ে যেতে দেয়।

 প্রশ্ন: মহাদেশীয় অবরোধ থেকে নেপোলিয়নের জন্য কোন সুবিধা ছিল?

 উত্তর: যদিও অবরোধের কিছু ইতিবাচক প্রভাব ছিল, যেমন গার্হস্থ্য শিল্পের প্রচার, এর সামগ্রিক প্রভাব নেতিবাচক পরিণতির দ্বারা ছাপিয়ে গেছে।

 প্রশ্ন: নেপোলিয়নের পতনের পেছনে অন্য কোন কারণগুলো অবদান রেখেছিল?

 উত্তর: নেপোলিয়নের সামরিক পরাজয়, তার সাম্রাজ্যের অত্যধিক সম্প্রসারণ এবং রাজনৈতিক ভুলগুলিও তার চূড়ান্ত পতনের উল্লেখযোগ্য কারণ ছিল।

 প্রশ্ন: মহাদেশীয় অবরোধে অন্যান্য ইউরোপীয় শক্তি কীভাবে সাড়া দিয়েছিল?

 উত্তর: অনেক ইউরোপীয় শক্তি অবরোধের প্রতি বিরক্তি প্রকাশ করেছিল এবং এটিকে দুর্বল করার উপায় খুঁজছিল, যা নেপোলিয়নের বিরুদ্ধে জোটের দিকে পরিচালিত করেছিল।

 প্রশ্ন: অদূরদর্শনে, মহাদেশীয় অবরোধ থেকে কী শিক্ষা নেওয়া যেতে পারে?

 উত্তর: মহাদেশীয় অবরোধ অর্থনৈতিক যুদ্ধের সীমাবদ্ধতা এবং রাজনৈতিক ও সামরিক সিদ্ধান্তে দীর্ঘমেয়াদী পরিণতি বিবেচনা করার গুরুত্ব তুলে ধরে।

Next Post Previous Post