কিভাবে মেটারনিক গোটা ইউরোপে রক্ষণশীলতা কায়েম করেছিল?

 মেটারনিকের মাস্টারস্ট্রোক: ইউরোপ জুড়ে রক্ষণশীলতা প্রতিষ্ঠা করা

মেটারনিকের ইউরোপ জুড়ে রক্ষণশীলতা প্রতিষ্ঠা
মেটারনিক গোটা ইউরোপে রক্ষণশীলতা

১৮০৯ থেকে ১৮৪৮ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত অস্ট্রিয়ার পররাষ্ট্র নীতির একমাত্র পরিচালক ছিলেন প্রিন্স মেটারনিক। নেপোলিয়নের পরবর্তী ইউরোপের রাজনীতিতে প্রধান নিয়ন্ত্রক ছিলেন তিনি। এই যুগের উপর তাঁর অবিসংবাদিক প্রাধান্যের জন্য এই সময়কালকে "মেটারনিক যুগ" বলে চিহ্নিত করা হয়। ঐতিহাসিক কেটেল বি তাঁর "A History of Modern Time" গ্রন্থে বলেন যে, "He could swim like a fish in the sparkling whilpool of Vienna."


মেটারনিক তন্ত্রের মূল বৈশিষ্ট্যগুলো হল,

  • ১। ইউরোপে প্রাক্ বিপ্লব যুগের রাজনৈতিক ব্যবস্থার পুনপ্রতিষ্ঠা।
  • ২। ফরাসি বিপ্লব প্রসূত গণতন্ত্র, উদারতন্ত্র ও জাতীয়তাবাদ প্রভৃতি প্রগতিশীল ভাবধারা প্রতিরোধ।
  • ৩। অস্ট্রিয়া রাজ্যের সংহতি ও সার্থক অক্ষুন্ন রাখা।
  • ৪। ইউরোপীয় রাজনীতিতে অস্ট্রিয়ার নিরঙ্কুশ প্রাধান্য স্থাপন করা।


মেটারনিক তার লক্ষ্য পূরণের জন্য প্রগতির বিরোধী, রক্ষণশীল ভাবধারা গ্রহণ করলেন। তাঁর মতে পুরাতন তন্ত্রই হলো সমাজ ও রাষ্ট্র ব্যবস্থার মূল ভিত্তি। তিনি প্রাক্ বিপ্লব যুগের বংশানুক্রমিক রাজতন্ত্র, রাজা দৈবসত্ব, অভিজাতন্ত্র এবং ক্যাথলিক গির্জার প্রাধান্যে বিশ্বাসী ছিলেন। তিনি পুরাতন তন্ত্র কে টিকিয়ে রাখার জন্য শক্তি সমবায় গঠন করেন। রাজন্যবর্গের প্রতি তাঁর পরামর্শ ছিল, "Govern and change nothing."


ফরাসি বিপ্লব প্রসূত ভাবধারা গুলিকে মেটারমিক মনে প্রাণে ঘৃণা করতেন। তাঁর কাছে এগুলি ছিল "রাজনৈতিক মহামারী", "অরাজকতা দূত"। আর ফরাসি বিপ্লব ছিল "এক সহস্র মস্তক বিশিষ্ট দানব", যার উন্মুক্ত মুখগহ্বর সমাজব্যবস্থাকে গ্রাস করতে উদ্যত। এক কথায় বিপ্লবী ভাবধারা ছিল জীবাণুর মতো যা ইউরোপে স্বাস্থ্যহানি ঘটাবে।


অস্ট্রিয়ায় মেটারনিক ব্যবস্থা সফল হওয়ায় তিনি ইউরোপের সর্বত্র জাতীয়তাবাদী বিপ্লব দমন করার চেষ্টা করেন। এই উদ্দেশ্যেই ভিয়েনা সম্মেলনের পর তাঁর উদ্যোগে ইউরোপে শক্তি সমবায় গড়ে ওঠে। তাঁর নেতৃত্বে শক্তি সমবায় ইতালির নেপলস ও পিটমন্ডের বিদ্রোহ দমন করে। তাঁর নির্দেশে ইউরোপীয় শক্তি ফ্রান্সকে স্পেনের বিদ্রোহনের ভার দেয়। এমনকি তিনি আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে ফরাসি বিপ্লবের ভাবধারাকে স্তব্ধ করার জন্য "কনসার্ট অফ ইউরোপ" গঠন করেন। একে বিপ্লবের ধ্বংসকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তোলেন। এইভাবে মেটারনিক ইউরোপের বিভিন্ন দেশে প্রতিক্রিয়াশীল শাসন ব্যবস্থা গড়ে তোলেন‌।


মেটারনিক অভ্যন্তরীণ ক্ষেত্রে জাতীয়তবাদের কন্ঠরোধ করা চেষ্টা করেন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে সরকারি নিয়ন্ত্রণে এনে উদারপন্থী ছাত্র-ছাত্রীদের, এমনকি অধ্যাপকদের কারারুদ্ধ করেন। সংবাদপত্রের স্বাধীনতা হরণ, বাক স্বাধীনতা খর্ব, পুলিশ ও গুপ্তচরদের সাহায্যে প্রজাদের স্বাধীনতা ও জাতীয়তাবাদী ভাবধারার কণ্ঠরোধ করেন।


মেটারনিক গোটা ইউরোপে এক প্রতিক্রিয়াশীল শাসন ব্যবস্থা কায়েম করেন এবং কিছুদিনের মধ্যেই ইউরোপের ভাগ্য নিয়ন্ত্রক ও "পুলিশম্যান" হিসেবে অভিভূত হন। এই কারণেই অনেক ঐতিহাসিক মেটারনিক কে ইউরোপের পুলিশ ম্যান এবং "ইউরোপের রক্ষণশীলতার জনক" বলে অভিহিত করেছেন। ঐতিহাসিক লিপসন তাকে "একজন সুযোগ সন্ধানী ও চক্রান্তকারী কূটনীতিক" বলে অভিহিত করেছেন। ঐতিহাসিক টেরর মনে করেন, মেটারনিকের নিজস্ব কোন আদর্শ ছিল না আর এই জন্যই মেটারনিকের পদ্ধতি ১৮৪৮ এর বিপ্লবের আঘাতে ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়।


তবে ঐতিহাসিক কেটেল বি মেটারনিকের নেতিবাচক মূল্যায়নে রাজি নন। তাঁর মতে মেটারনিকের মূল লক্ষ্য ছিল অস্ট্রিয়া সাম্রাজ্যের সংহতি ও স্বার্থ রক্ষা, এই বিচারে তিনি যে সফল তাতে কোন সন্দেহ নেই। তারই চেষ্টায় প্রায় দীর্ঘ ৪০ বছর যুদ্ধ ক্লান্ত ইউরোপে শান্তি বজায় ছিল। ঐতিহাসিক ফিসার বলেছেন, "The idea that Europe could be ruled on principle of negative conservative was wholly chimeracal."


Related Short Question:


প্রশ্নঃ মেটারনিক কে ছিলেন?

উত্তর: মেটারনিক ছিলেন 19 শতকের একজন প্রভাবশালী অস্ট্রিয়ান রাষ্ট্রনায়ক এবং কূটনীতিক।


প্রশ্ন: ইউরোপে মেটারনিকের ভূমিকা কী ছিল?

উত্তর: অস্ট্রিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং চ্যান্সেলর হিসাবে মেটারনিক ইউরোপীয় রাজনীতিতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন, মহাদেশের বিষয়গুলিকে গঠন করেছিলেন।


প্রশ্ন: মেটারনিকের রাজনৈতিক আদর্শ কী ছিল?

উত্তর: মেটারনিক ছিলেন একজন কট্টর রক্ষণশীল যিনি ঐতিহ্যগত রাজতান্ত্রিক শাসন বজায় রাখতে এবং বিপ্লবী আদর্শের বিরোধিতা করতে বিশ্বাস করতেন।


প্রশ্ন: মেটারনিক কীভাবে ইউরোপ জুড়ে রক্ষণশীলতা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন?

উত্তর: মেটারনিক বিপ্লবী আন্দোলনকে দমন করতে এবং ইউরোপে বিদ্যমান শৃঙ্খলা রক্ষা করতে কূটনৈতিক আলোচনা এবং জোট ব্যবহার করেছিলেন।


প্রশ্ন: ভিয়েনার কংগ্রেস কী ছিল এবং এতে মেটারনিখের ভূমিকা কী ছিল?

উত্তর: ভিয়েনার কংগ্রেস ছিল ইউরোপের রাজনৈতিক মানচিত্র পুনরায় আঁকতে নেপোলিয়ন যুদ্ধ-পরবর্তী একটি সম্মেলন। মেটারনিক চুক্তিগুলি গঠনে এবং ক্ষমতার ভারসাম্য বজায় রাখতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছিল।


প্রশ্ন: মেটারনিক জাতীয়তাবাদকে কীভাবে দেখেছিলেন?

উত্তর: মেটারনিক জাতীয়তাবাদের তীব্র বিরোধিতা করেছিলেন, এই ভয়ে যে এটি প্রতিষ্ঠিত সাম্রাজ্যগুলিকে অস্থিতিশীল করবে এবং অভ্যন্তরীণ অস্থিরতা বাড়াবে।


প্রশ্ন: সেন্সরশিপ এবং রাজনৈতিক দমন-পীড়ন সম্পর্কে মেটারনিকের মতামত কী ছিল?

উত্তর: মেটারনিক কঠোর সেন্সরশিপে বিশ্বাস করতেন এবং যেকোনো ভিন্নমত বা বিপ্লবী ধারণাকে দমন করতে রাজনৈতিক দমন-পীড়ন ব্যবহার করতেন।


প্রশ্ন: মেটারনিকের রক্ষণশীলতা কি শেষ ছিল?

উত্তর: মেটারনিকের প্রচেষ্টায় স্বল্পমেয়াদী উল্লেখযোগ্য সাফল্য থাকলেও, জাতীয়তাবাদ এবং উদারনীতির শক্তিগুলি অবশেষে ইউরোপে রক্ষণশীলতাকে চ্যালেঞ্জ করেছিল।

Next Post Previous Post